মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

কী সেবা কীভাবে পাবেন

প্রকাশযোগ্য তথ্য আবেদনের মাধ্যমে পাওয়া যায়। এছাড়া জাতীয় পরিচয়পত্র, ভোটার তালিকা সম্পর্কীত সেবার জন্য ভোটার তালিকা বিধিমালা ২০১২ ও জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন আইন ২০১০ অনুযায়ী যেকোন সেবা এবং জাতীয় পরিচয়পত্র প্রস্তুত, প্রদান, বিতরণ ও এ সম্পর্কিত পরমর্শ ও সেবা প্রদান করা হয়।

নতুন ভোটার হিসাবে অন্তর্ভূক্তি

ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম একটি চলমান প্রক্রিয়া। ভোটার হওয়ার যোগ্য কোন নাগরিক ইতিপূর্বে ভোটার হিসাবে নিবন্ধিত না হয়ে থাকলে এবং তার জন্ম যদি ১লা জানুয়ারী ২০১৩ সালের পূর্বে হয় তাহলে তিনি ভোটার হিসাবে নিবন্ধিত হতে পারেন। ভোটার যোগ্য কোন নাগরিক ভোটার হিসাবে নিবন্ধিত হতে চাইলে তাকে ভোটার নিবন্ধন ফরম-২ এর সাথে যেসব দলিলাদি দাখিল করতে হবে-

  • ১৭ সংখ্যার জন্ম নিবন্ধন সনদের ফটোকপি
  • এসএসসি অথবা সমামান পরীক্ষার শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদের ফটোকপি
  • নাগরিকত্বের সনদপত্র
  • পিতা,মাতা, স্বমী/স্ত্রী এর জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি
  • ইউটিলিটি বিলের ফটোকপি/পার্সপোর্ট/ড্রাইভিং লাইসেন্স/টিআইএন সনদ (তার ঠিকানা সমর্থনে)

 

( উল্লিখিত দলিলের সত্যায়িত ফটোকপি দাখিল করতে হবে হতে হবে। )

শুধুমাত্র নিবন্ধিত ভোটারগণই জাতীয় পরিচয়পত্র পাবেন

বর্তমানে উপজেলা নির্বাচন অফিস, বিরল, দিনাজপুর এ নতুন ভোটারদের নিবন্ধন কার্য সম্পন্ন করা হয়।

 

ভোটার তালিকা সম্পর্কিত সেবাঃ

১। জাতীয় পরিচয়পত্র হারিয়ে গেলে ভোটার নম্বরের জন্যঃ

  • নির্দিষ্ট ফি প্রদান স্বাপেক্ষে (ট্রেজারী চালান) উপজেলা নির্বাচন অফিসার, বিরল বরাবর আবেদন করে ভোটার নম্বর পাওয়া যায়।

২। ভোটার তালিকার সার্টিফাইড কপির জন্যঃ

  • নির্দিষ্ট ফি প্রদান স্বাপেক্ষে (ট্রেজারী চালান) উপজেলা নির্বাচন অফিসার, বিরল বরাবর আবেদন করে ভোটার তালিকার (হালনাগাদ ভোটার তালিকার) সার্টিফাইড কপি পাওয়া যায়।

৩। ছবিছাড়া ভোটার তালিকার সিডির জন্যঃ

  • নির্দিষ্ট ফি প্রদান স্বাপেক্ষে (ট্রেজারী চালান) উপজেলা নির্বাচন অফিসার, বিরল বরাবর আবেদন করে ছবিছাড়া ভোটার তালিকার সিডি পাওয়া যায়।

 

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন/স্থানান্তরণ/পুনঃ ইস্যু সম্পর্কিত সেবাঃ

১। নিজ/পিতা/স্বামী/মাতার নামের বানান সংশোধন-

আবদনপত্রের সাথে যে সব দলিলাদি (এক বা একাধিক) দাখিল করতে হবে-

  • এসএসসি/সমমান সনদ 
  • জন্ম সনদ
  • পাসপোর্ট
  • নাগরিকত্ব সনদ
  • চাকুরীর প্রমাণপত্র
  • নিকাহনামা
  • পিতা/স্বামী/মাতার জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি

আবেদনপত্রের সাথে সংযুক্ত দলিলাদি অবশ্যই সত্যায়িত হতে হবে।

(ডাউনলোড লিংক হতে ফরম ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যেতে পারে)

২। নিজের নাম পরিবর্তন-

ডাক নাম বা অন্য নামে নিবন্ধিত হলে সংশোধনের জন্য আবেদনের সাথে জমা দিতে হবে

  • এসএসসি/সমমান সনদের সত্যায়িত ফটোকপি
  • বিবাহিতদের ক্ষেত্রে স্ত্রী/স্বামীর জাতীয় পরিচয়পত্রের সত্যায়িত ফটোকপি
  • ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে সম্পাদিত এফিডেভিট
  • জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত বিজ্ঞাপনের কপি

পরবতীতে কাগজপত্রের মূলকপি সহ ব্যক্তিগত শুনানীর জন্য উপস্থিত হতে হবে।

৩। বিবাহ/বিবাহ বিচ্ছেদের কারণে সংশোধন-

বিবাহের কারণে স্বামীর নাম অন্তর্ভূক্ত করতে চাইলে কাবিননামা ও স্বামীর জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি দাখিল করতে হবে।

  • বিবাহ-বিচ্ছেদের কারণে স্বামীর নাম বাদ দিতে চাইলে তালাকনামার সত্যায়িত কপি দাখিল করতে হবে।

৪। পিতা/মাতার নাম পরিবর্তন-

পিতা/মাতার নাম আমূল পরিবর্তনের ক্ষেত্রে আবেদনের সাথে জমা দিতে হবে

  • এসএসসি /এইচএসসি/সমমান পরীক্ষার সনদপত্র/ রেজিস্ট্রেশন কার্ড
  • পিতা/মাতার পরিচয়পত্রের সত্যায়িত ফটোকপি
  • পিতা/মাতা মৃত হলে অন্যান্য ভাই/বোনের পরিচয়পত্রের সত্যায়িত ফটোকপি
  • অন্য কোন গ্রহণযোগ্য কাগজের সত্যায়িত কপি

পরবতীতে কাগজপত্রের মূলকপি সহ ব্যক্তিগত শুনানী গ্রহণ করা প্রয়োজন হতে পারে।

৫। জন্ম তারিখ সংশোধন-

যাদের শিক্ষাগত যোগ্যতা ন্যূনতম এসএসসি/সমমান

  • তাদের জন্মতারিখ সংশোধনের ক্ষেত্রে আবশ্যিকভাবে এসএসসি বা সমমান পরীক্ষার সনদপত্রের সত্যায়িত ফটোকপি জমা দিতে হবে।
  • বয়সের পার্থক্য অস্বাভাবিক পরিবর্তনের ক্ষেত্রে সনদের মূল কপি প্রদর্শন কিংবা ব্যক্তিগত শুনানীতে অংশ নেয়ার প্রয়োজন হতে পারে।

যাদের শিক্ষাগত  যোগ্যতা অনূর্ধ এসএসসি/সমমান তাদের জন্ম তারিখ সংশোধনের জন্য জাতীয় পরিচয়পত্র ইস্যুর তারিখের আগের তারিখের –

  • সার্ভিস বুক/এমপিও’র কপি
  • ড্রাইভিং লাইসেন্স
  • জন্ম সনদ
  • নিকাহনামা
  • পাসপোর্টের কপি

প্রভৃতি দাখিল করতে হবে।

পরবতীতে কাগজপত্রের মূলকপি সহ ব্যক্তিগত শুনানীর জন্য উপস্থিত হতে হবে, প্রয়োজনে সরেজমিনে তদন্ত করা হয়।

৬। বিবিধ সংশোধন-

জাতীয় পরিচয়পত্রে কোন নামের পূর্বে পদবী, উপাধি, খেতাব ইত্যাদি সংযুক্ত করা যাবে না।

  • পিতা/স্বামী/মাতাকে “মৃত” উল্লেখ করতে চাইলে মৃত্যু সনদ দাখিল করতে হবে।
  • জীবিত পিতা/স্বামী/মাতাকে ভুলক্রমে “মৃত” হিসেবে উল্লেখ করার কারণে পরিচয়পত্র সংশোধন করতে হলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির পরিচয়পত্রের কপি দাখিল করতে হবে।

৭। রক্তের গ্রুপ সংশোধন-

রক্তের গ্রুপ অন্তর্ভূক্ত বা সংশোধন করতে হলে মেডিকেল প্রতিবেদন দাখিল করতে হবে।

৮। এক ভোটার এলাকা থেকে অন্য ভোটার এলাকায় নাম স্থানান্তর-

ভোটার এলাকা পরিবর্তনের বিষয়ে ফরম-১৩/ফরম-১৪ এ আবেদন করতে হবে।

  • ইউটিলিটি বিল (বিদ্যুৎ/টেলিফোন/গ্যাস/পানির বিল এর কপি, কর আদায়ের কপি) কপি
  • জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি।
  • চেয়ারম্যান/ওয়ার্ড কমিশনারের প্রত্যয়নপত্র ইত্যাদি দাখিল করতে হবে।

(ডাউনলোড লিংক হতে ফরম ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যেতে পারে)

৯। আইডি কার্ডের ঠিকানা সংশোধন-

  • এজন্য পরিবারের কোন সদস্যের পরিচয়পত্রের কপি
  • ইউটিলিটি বিল (বিদ্যুৎ/টেলিফোন/গ্যাস/পানির বিল এর কপি, কর আদায়ের কপি) কপি
  • চেয়ারম্যান/ওয়ার্ড কমিশনারের প্রত্যয়নপত্র ইত্যাদি দাখিল করতে হবে।

১০। হালনাগাদ কর্মসূচীর পরিচয়পত্র/সংশোধন/পূনঃ ইস্যু পরিচয়পত্র বিতরণ-

জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন অনুবিভাগ থেকে পরিচয়পত্র প্রাপ্তি স্বাপেক্ষে ভোটারদের মাঝে জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ করা হয়।